• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮
  • ||
  • আর্কাইভ

দশানী মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে পাঠদান

প্রকাশ:  ১১ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০৩
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

মতলব উত্তর উপজেলার দশানী মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলছে পাঠদান। বিদ্যালয়ের মূল ফটকে তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্রের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয় করার পর ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠানের শ্রেণি কার্যক্রমের একাধিক কক্ষ ঘুরে দেখা যায় স্বাস্থ্যবিধি মানার ইতিবাচক চিত্র।
২০ সেপ্টেম্বর সোমবার সকালে দশানী মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা গেছে, গেটে সবার তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার দেয়া হচ্ছে প্রত্যেকের হাতে হাতে এবং হাত ধোয়ার জন্য ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক সবাই মাস্ক পরে ক্লাসে এসেছেন। দূরত্ব বজায় রেখে বেঞ্চ সাজানো হয়েছে। বিদ্যালয়ে এ দিন শতকরা ৮৫ ভাগ শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলো।
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার নবম দিনে স্কুলটিতে গিয়ে দেখা গেছে স্বতঃস্ফূর্তভাবে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুলে প্রবেশ করছে। পথে পথে মেয়েরা স্কুলের উদ্দেশ্যে হেঁটে যাচ্ছে। কেউ সহপাঠীদের সাথে দল বেঁধে কেউবা একাকী। তাদের পরনে স্কুলের পোশাক ও পিঠে ব্যাগ। এ সময় তাদের চেহারায় ছিল খুশির ঝিলিক। তাদের মাঝে প্রাণচাঞ্চাল্য দেখা গেছে। শ্রেণিকক্ষে প্রতিটি বেঞ্চে দুজন করে বসতে দেখা গেছে।
দীর্ঘদিন পর ক্লাসে ফিরতে পেরে শিক্ষার্থীরা উচ্ছ্বসিত বলে জানায় কয়েকজন শিক্ষার্থী। দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর ক্লাসে বসতে পেরে জানিয়েছে সুখকর অনুভূতির কথা। স্কুলে আসতে পেরে তাদের খুবই ভালো লাগছে। তারা বলে, সবার সাথে সবার দেখা হচ্ছে। করোনাকালে বাড়িতে বসে থাকতে থাকতে হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। পাশাপাশি লেখাপড়ায় পিছিয়ে পড়ার যে ক্ষতি হয়েছে তা থেকে এ যাত্রায় রক্ষা পাওয়া গেল। এভাবে নিয়ম মেনে ক্লাস হলে তাদের ক্ষতি কিছুটা হলেও পুষিয়ে নেয়া যাবে বলে মন্তব্য করে কয়েকজন শিক্ষার্থী।
শিক্ষকরা বলছেন, মহামারি পরিস্থিতিতে দীর্ঘ সময় পর শিক্ষার্থীদের মধ্যে ফিরেছেন তারা। ক্লাসে ফেরার মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীদের একঘেঁয়েমি, হতাশা আস্তে আস্তে কেটে যাবে। সরকারের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানান তারা।
দশানী মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মনসুর আহাম্মদ বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা। সরকারি সকল নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঠদান করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতে সকল ধরনের ব্যবস্থা রেখেছি। মাস্ক বাধ্যতামূলক ও দূরত্ব বজায় রেখে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। আমি দোয়া করি মহান আল্লাহ তায়ালা যাতে আমাদের সকলকে সুস্থ ও করোনা থেকে মুক্ত রাখেন।