• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ১৫ আষাঢ় ১৪২৯
  • ||
  • আর্কাইভ

আজ যোগদান করছেন নবনিযুক্ত জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান

প্রকাশ:  ০১ জুন ২০২২, ০৮:৪২
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

চাঁদপুরের ২১তম জেলা প্রশাসক হিসেবে আজই যোগদান করতে যাচ্ছেন নবনিযুক্ত জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। আজ ১ জুন বুধবার নতুন মাসের সূচনার পাশাপাশি সূচনা ঘটতে যাচ্ছে তাঁর নতুন কর্মস্থলেরও। ব্যক্তি জীবনে প্রথম জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদান করতে যাচ্ছেন ইলিশের বাড়ি চাঁদপুরে। এই দিন ঢাকা থেকে সড়ক যোগে সকাল ৯টায় রওনা হয়ে দুপুর ১২টায় চাঁদপুরে পৌঁছার কথা রয়েছে তাঁর। দুপুর ২টায় চাঁদপুর ডিসি অফিসে নিজ কার্যালয়ে আসন গ্রহণ করবেন তিনি। জেলা প্রশাসক জানান, আগামীকাল (আজ) চাঁদপুরে যোগদান করছি। যোগদানের পর আপনাদের (সাংবাদিকদের) সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হবে।

গত ৩০ মে ১০ দিনের সরকারি সফর শেষে সুইজারল্যান্ড থেকে বাংলাদেশে ফেরার পর গতকাল ৩১ মে (মঙ্গলবার) স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে নিজের শেষ কর্ম দিবস পালন করেছেন উপ-সচিব পদমর্যাদার স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব কামরুল হাসান। মাঠ পর্যায়ে সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত এই কর্মকর্তার মন্ত্রণালয়ে গতকালকের দিনটি কেটেছে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সহকর্মীদের কাছ থেকে বিদায় নেয়া এবং দায়িত্ব হস্তান্তরের মধ্য দিয়ে।

গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টায় কামরুল হাসানকে নতুন কর্মস্থলের জন্যে শুভ কামনা জানিয়ে সচিবালয় থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফুল দিয়ে বিদায় সংবর্ধনা দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সচিব লোকমান হোসেন মিয়া। এ সময় মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের অতিরিক্ত সচিবগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রত্যেকে তাঁদের বক্তব্যে বিদায়ী উপ-সচিবের সততা ও নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তাঁদের প্রত্যাশা চাঁদপুরে গিয়েও জনগণের ভালোবাসা ও প্রশংসা কুড়াবেন তিনি। স্বাস্থ্য সচিবের কার্যালয়ে আয়োজিত বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে সকলের কাছে দোয়া চান প্রশাসনের চৌকস এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, যে দিনগুলো গত হয়েছে তা ভালো ছিলো, আগামীর দিনগুলোও যেন ভালো হয় সেজন্যে আপনাদের সকলের দোয়া ও সহযোগিতা চাই। এ সময় তাঁকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পরিবারের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা উপহার প্রদান করেন স্বাস্থ্য সচিব লোকমান হোসেন মিয়া।

নবাগত জেলা প্রশাসক কামরুল হাসানের জন্মস্থান বরিশাল জেলা সদরের কাশিপুর উপজেলায়। তাঁর বাবা-মা দুজনই গ্রামের বাড়িতে থাকেন। চার ভাই-বোনের মধ্যে কামরুল হাসানের অবস্থান ২য়। ছোট ভাই কাশিপুর পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর। বড় বোন বরিশাল গৌরনদী মাহিলা কলেজের প্রভাষক। ছোট ভগ্নিপতি ডিজিএফআই-এর একজন কর্মকর্তা।

ব্যক্তিগত জীবনে দুই সন্তানের জনক তিনি। এক ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে এতোদিন ঢাকা বিয়াম স্কুলের প্রাথমিক বিভাগে নার্সারিতে অধ্যয়নরত ছিলো। ছোট ছেলে এখনও প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাজীবন শুরু করেনি। তাঁর স্ত্রী একজন আদর্শ গৃহিণী।

কামরুল হাসানের অন্যতম প্রিয় শখ বড়শি দিয়ে মাছ শিকার করা। ছোটবেলা থেকেই তিনি মাছ ধরতে পছন্দ করতেন। বহু না খেয়ে প্রায় সারাদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা বড়শি দিয়ে মাছ শিকার করার রেকর্ডও তাঁর রয়েছে।

বিসিএস-এর ২৪তম ব্যাচের এই কর্মকর্তা গত প্রায় দুই বছর স্বাস্থ্য মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালনের পূর্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদের ব্যক্তিগত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সিনিয়র সহকারী সচিব পদমর্যাদায় কর্মরত ছিলেন বিসিএস ক্যাডারদের প্রশিক্ষণ একাডেমি বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব এডমিনিস্ট্রেশন ম্যানেজমেন্ট (বিয়াম একাডেমি)তে। মাঠ পর্যায়ে দুই উপজেলায় ছিলেন উপজেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী কর্মকর্তা। প্রথমে ফরিদপুরের নগরকান্দা ও পরে রাজবাড়ির বালিয়াকান্দিতে ইউএনও হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

কামরুল হাসানের দপ্তরের ব্যক্তিগত এক কর্মকর্তা আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, গত দুই বছরে আমরা স্যারকে কখনও রাগ করতে দেখিনি। সবসময় হাসিমুখে সকল পরিস্থিতি মোকাবেলা করেছেন। চাঁদপুরবাসী একজন সৎ জেলা প্রশাসক পেতে যাচ্ছে। যিনি অন্যায়ের সাথে কখনও নিজেকে আপস করেননি। আশা করি আগামীতেও করবেন না। স্যার নিঃসন্দেহে ভালো মানুষ।

সর্বাধিক পঠিত