• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • সোমবার, ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯
  • ||
  • আর্কাইভ

স্বপ্নের সেতু উন্মোচনে ভার্চুয়ালি সামিল হলো চাঁদপুরবাসী ॥ বিশাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

প্রকাশ:  ২৬ জুন ২০২২, ১৩:৩৫
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

আমার টাকায় আমার সেতু, বাংলাদেশের পদ্মা সেতু। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সবচেয়ে বড় অর্জন দেশের বহুল কাক্সিক্ষত বাংলার উন্নয়নের দৃশ্যমান স্থাপনা, স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী দিনে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মাধ্যমে সামিল হলো চাঁদপুর জেলাবাসী। জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সেতুর উদ্বোধনী শোভাযাত্রায় সামিল ছিলেন চাঁদপুর-হাইমচরবাসীর অহঙ্কার, চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে উদ্বোধনী দিনে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ থেকে সকালে বের হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। শোভাযাত্রাকে কেন্দ্র করে সকাল ৮টা থেকেই বিভিন্ন বাদ্যবাজনা সহকারে দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার ছবি সম্বলিত রঙিন পোস্টার ফেস্টুন ও পদ্মা সেতুর ব্যানার সমন্বয়ে মানুষজন উপস্থিত হতে থাকেন চাঁদপুর শহরের হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে। ক্ষণিকের মধ্যে উৎসবে রূপ নেয় মাঠটি। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থার নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষজনদের ব্যাপক উপস্থিতিতে স্বল্প সময়ের মধ্যেই মাঠটি কানা কানায় পরিপূর্ণ হয়ে উঠে। মানুষের উপস্থিতি মূল সড়কেও ছড়িয়ে পড়ে। শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি শোভাযাত্রার স্থলে উপস্থিত হলে সকাল সোয়া ৯টায় শুরু হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। জেলা প্রশাসক মোঃ কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার), চাঁদপুর জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব ওসমান গণি পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ্ব নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েলসহ জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, সিভিল সার্জন অফিস, চাঁদপুর প্রেসক্লাব, চাঁদপুর পৌরসভা, চাঁদপুর সরকারি কলেজ, চাঁদপুর সরকারি মহিলা কলেজ, পুরাণবাজার ডিগ্রি কলেজ, বাবুরহাট স্কুল এন্ড কলেজ, আল আমিন একাডেমী স্কুল এন্ড কলেজ, হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, মাতৃপীঠ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পুরাণবাজার মধুসূদন উচ্চ বিদ্যালয়, গণি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, পুরাণবাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, চাঁদপুর আক্কাছ আলী রেলওয়ে একাডেমি, পুরানবাজার নূরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সুধীজনের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি মিশন রোড হয়ে চাঁদপুর স্টেডিয়ামে গিয়ে শেষ হয়। সেখানেই ব্যাপক পরিসরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পদ্মা সেতু উদ্বোধনের দৃশ্যাবলী ভার্চুয়ালে দেখার জন্যে সুব্যবস্থা করা হয়েছিলো। মাঠের বিশাল অংশ জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছিল বিশাল প্যান্ডেল। লাগানো হয় কয়েকটি প্রজেক্টর। যার মাধ্যমে মাঠে উপস্থিত হাজারো দর্শক সুধীজন ভার্চুয়ালী দেখতে পান পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী পর্ব। বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের ব্যাপক উপস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগেই ভার্চুয়ালি উদ্বোধনী পর্ব দেখার জন্য আসা মানুষের ব্যাপক উপস্থিতিতে পরিপূর্ণ হয়ে উঠে চাঁদপুরের বিশাল স্টেডিয়াম। আনন্দের অতিশয্যে শেখ হাসিনার সফলতায় মুহুর্মুহু শ্লোগানে পরিণত হয় অনুষ্ঠানস্থল। অনুষ্ঠানস্থলে শুধু চাঁদপুর শহরবাসীই উপস্থিত ছিলেন না, ছিলেন জেলার বিভিন্ন উপজেলার সুধী সমাজ ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ। তারাও বাদ্য বাজনাসহ খণ্ড খণ্ড আনন্দ মিছিল নিয়ে চাঁদপুরে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। জেলাবাসী ভার্চুয়ালি উপভোগ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের অন্যতম স্বপ্নের সেতু পদ্মা সেতুর বাস্তব উদ্বোধন।
ছবি : ০১
জেলা আওয়ামী লীগের অংশগ্রহণ ছিল হতাশার
চাঁদপুর কণ্ঠ রিপোর্ট ॥ পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে চাঁদপুর জেলা প্রশাসন আয়োজিত আনন্দ র‌্যালিতে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে অংশগ্রহণ ছিল হতাশার। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দীন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলালের নেতৃত্বে যে র‌্যালি হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসে জেলা প্রশাসনের র‌্যালির সাথে একাত্ম হয়, সে র‌্যালিতে উপস্থিতির সংখ্যা দেখে অনেকেই হতাশা ব্যক্ত করেন। গতকাল সকাল ৯টায় জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে থেকে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে নারী-পুরুষ মিলিয়ে শ'খানেক নেতা-কর্মী একত্রিত হয়ে হাসান আলী স্কুল মাঠে এসে জেলা প্রশাসনের র‌্যালিতে অংশ নেয়। মূল দলের জেলার মূল নেতৃত্বে আসা আনন্দ র‌্যালিতে উপস্থিতির সংখ্যা এতো কম দেখে অনেকে হতাশা ব্যক্ত করেন। 

সর্বাধিক পঠিত