• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯
  • ||
  • আর্কাইভ

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নতুন নতুন সেবা ইউনিট যুক্ত হচ্ছে ॥ সংস্কার হচ্ছে পুরানো ইউনিট

প্রকাশ:  ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১৩:০১
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

 চাঁদপুর জেলার সর্ববৃহৎ সরকারি স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান আড়াইশ’ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং স্বাস্থ্য সেবায় অনেক পরিবর্তন হচ্ছে। নতুন নতুন সেবা ইউনিট এখানে যুক্ত হচ্ছে। পুরানোগুলোকেও সংস্কার এবং আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। গত কদিন সরজমিনে হাসপাতাল ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেলো। তবে লোকবল সঙ্কটের কারণে কিছু কিছু ইউনিট পুরোপুরি সেবা দিতে পারছে না। 
হাসপাতালের দ্বিতীয় তলায় এনসিডি কর্নার নামে নতুন একটি ইউনিট খোলা হয়েছে। এখানে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, অ্যাজমা, স্ট্রোক এবং ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা ও পরামর্শ দেয়া হয়। হাসপাতালের দ্বিতীয়তলার পশ্চিম অংশে একটি রুমের সামনে এনসিডি কর্নার লেখা সাইনবোর্ড দেখা গেছে। এ বিষয়ে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের কাছে জানতে চাওয়া হয় এখানে কী কী সেবা দেয়া হয়।
তিনি জানালেন, এখানে আধুনিক প্রযুক্তিতে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, অ্যাজমা, স্ট্রোক ও ক্যান্সার রোগের চিকিৎসা এবং পরামর্শ দেয়া হয়। এক মাস হলো এই ইউনিটটি চালু হয়েছে। এখানে এসব চিকিৎসা এবং রোগ নির্ণয় করার জন্যে আধুনিক মেশিন ও যন্ত্রপাতি রয়েছে। এটির জন্যে পৃথক দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকও রয়েছে। দেখা গেলো, উচ্চ রক্তচাপ মাপার জন্যে একটি মেশিন রয়েছে, যেটির ভেতরে হাত কনুই পর্যন্ত ঢুকিয়ে দিয়ে সুইচ অন করলে নিজে নিজেই মেশিনের সাহায্যে প্রেসার মাপা হয়ে যায়। সাথে সাথেই রিপোর্ট প্রিন্ট চলে আসে।
দোতলার পশ্চিম অংশে গিয়ে দেখা গেলো শেষদিকে দুই পাশে দুটা ইউনিটে সংস্কার কাজ চলছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তত্ত্বাবধায়ক জানালেন, এখানে কার্ডিওলজি বিভাগ চালু করা হবে। যেটি করোনার সময়ে চতুর্থ তলায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো। আগে ছিলো একটা ইউনিট, যেখানে নারী-পুরুষ এক সাথে চিকিৎসা চলতো। এখন পুরুষ-মহিলা আলাদা দুটো ইউনিট করা হবে এবং নতুন সব মেশিনপত্র বসানো হবে। 
নিচতলায় পোস্ট অপারেটিভ বিভাগকে দেখা গেলো অনেক আধুনিক করা হয়েছে। এখানে আগের চেয়ে আধুনিক অনেক মেশিন ও যন্ত্রপাতি বসানো হয়েছে। আগে এখানে পেসেন্ট মনিটর ছিলো না। এখন এখানে প্রত্যেক সিটে মনিটর রয়েছে। যেখানে রোগীর পালস্ ও অন্যান্য বিষয় মনিটর করা হয়। যে কোনো অপারেশন করার পর রোগীকে ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণের জন্যে এই ইউনিটে রাখা হয়। এই বিভাগের জন্যেও পৃথক জনবল রয়েছে। এখানে বেশ কজন রোগীকে চিকিৎসা সেবা দিতে দেখা গেছে। 
হাসপাতালে আরো একটি পরিবর্তনের কাজ চলছে। সেটি হলো ওয়ানস্টপ সার্ভিস। এই কার্যক্রম চালুর মধ্য দিয়ে চাঁদপুরের এই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রমে মানুষের আস্থার জায়গায় চলে আসবে বলে প্রত্যাশা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের। এটির কাজ চলছে। আগামী এক মাসের মধ্যে ওয়ানস্টপ সার্ভিস কার্যক্রম চালু করা যাবে বলে তত্ত্বাবধায়ক আশা প্রকাশ করলেন। এই বিভাগটি সম্পূর্ণ আলাদা একটি ইউনিট হিসেবে কার্যক্রম চালাবে। এর লোকবলও থাকবে আলাদা। 
তবে প্রয়োজনীয় জনবল সঙ্কটের কারণে বিভাগগুলো চালু করা যাচ্ছে না, আবার কোনো কোনো বিভাগ চালু থাকলেও পুরোপুরি সেবা দিতে পারছে না বলে জানালেন তত্ত্বাবধায়ক। 

সর্বাধিক পঠিত