• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১
  • ||
  • আর্কাইভ

সোনারগাঁওয়ে ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামের আনন্দভ্রমণ

প্রকাশ:  ২৮ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:০৮
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

২৪ ডিসেম্বর হয়ে গেলো ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামের বাৎসরিক আনন্দ ভ্রমণ-২০২২। এবারের আনন্দ ভ্রমণ ছিলো ঐতিহাসিক সোনারগাঁও লোকশিল্প যাদুঘর এবং পানাম নগর। ভ্রমণের আহ্বায়ক ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা নূরুল ইসলাম ফরহাদ ও সদস্য সচিব রাবেয়া আক্তারের অক্লান্ত পরিশ্রমে এবারের ভ্রমণটি শৃঙ্খল এবং সুন্দরভাবে সম্পন্ন হয়।
সকাল সাড়ে সাতটার মধ্যে লেখক ফোরাম কার্যালয়ে ভ্রমণের উদ্দেশ্যে একত্রিত হয় সকল পর্যটক। বোগদাদ বাসে পূর্বের নির্ধারিত আসন বিন্যাস মোতাবেক স্ব-স্ব আসনে বসে পড়ে। যাত্রা পথে আনন্দ উৎসব আয়োজনের জন্য আগে থেকে প্রস্তুত রাখা সাউন্ড বক্স উঠানো হলো গাড়িতে। তারপর খাবার দাবারসহ আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র তুলে সকল ভ্রমণার্থীর পরিচয়ের মাধ্যমে যাত্রা শুরু হয়। যাত্রার শুরতে সকল পর্যটকের জন্যে নির্ধারিত উপহার সামগ্রী তুলে দেয়া হয়। উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিলো টি-শার্ট, প্যাড, কলম ও শিডিউল।
ভ্রমণের মূল আনন্দ স্বাভাবিকভাবে যে স্থানে যাওয়া হয় সেটাকেই কেন্দ্র করে হয়ে থাকে। কিন্তু বরাবরের মত এবারও লেখক ফোরামের মূল আনন্দ হয়েছে গাড়িতেই, বিশেষ করে আসার সময়। উপস্থিত সকলে মনের আনন্দে যে যার মতো করে নাচ, গান, কবিতা উপস্থাপন করেছে। আনন্দের মাঝেই পৌঁছানো হলো সোনারগাঁওয়ে। পথি মধ্যে সুন্দর একটি স্থান দেখে, বাস থামিয়ে সকালের নাস্তা পর্ব শেষ করা হলো। নাস্তা সেরে সবাই যার যার আসনে গিয়ে বসলো। গাড়িটি ছুটতে লাগলো সোনারগাঁওয়ের উদ্দেশ্যে। সোনারগাঁও যাদুঘরে প্রবেশ করে সবাই আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ে। যাদুঘরকে কেন্দ্র করে বাহিরের অংশের পরিপাটি পরিবেশ যে কাউকেই মুগ্ধ করবে। বিস্তীর্ণ অংশ জুড়ে রয়েছে ফুলের বাগান। রয়েছে জাতির পিতার ভাস্কর্য, গরুর গাড়ির ভাস্কর্য, তোরণ, লাইব্রেরী। মূল ভবনে প্রবেশের পর বাংলার পুরনো সব শিল্প কর্ম দেখে তরুণরা যেমন অতীত সম্পর্কে জানে তেমনি মোস্তফা কামাল মুকুলের মতো প্রবীণরা হারিয়ে যান অতীতে।
বর্তমান প্রজন্ম আধুনিকতার ছোঁয়ায় ভুলে গেছে অতীতকে। নারীরা এখন আর নকশিকাঁথা তৈরি করে না। পুরনো দিনে নবাবদের ব্যবহার করা জিনিস দেখার মধ্যে বাংলাকে জানা যায়। অথচ জ্ঞান আর শিল্পকর্ম রেখে আজ আমরা ব্যস্ত শুধুই আধুনিক বিনোদনে।
সোনারগাঁওয়ে দারুণ সময় কাটানোর পর মধাহ্নভোজ গ্রহণ করা হয় স্থানীয় একটি হোটেলে। তারপর যাত্রা করা হয় ঐতিহাসিক পানাম নগরে। যেটি আমাদের প্রাচীন নদী বন্দর ও সুবর্ণ গ্রাম। একটি সড়কের দুই পাশে মোট ৫২টি ভবন নিয়ে পানাম নগর। সেই নগরে পা রেখে লেখক ফোরাম প্রাচীন বাংলার রাজত্বের নিদর্শনে বিমোহিত হয়। সংগঠনের সদস্যরা তখন যেন স্বপ্নের দেশে চলে যায়। সকলে যে যার মতো স্মৃতিতে মুহূর্তগুলোকে ক্যামরাবন্দী১ করতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। পরবর্তীতে বিকেল ৫টায় পানাম নগর সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক বন্ধ করে দেয়ার আগে সংগঠনের সকল সদস্য এই পানাম নগরেই স্মৃতির ফ্রেমেবন্ধী হয়।
তারপর পুরোদিন উপভোগের পর নেমে আসে সন্ধ্যা। এবার বাড়ি ফেরার পালা। সকলে আবারও বাড়ি ফেরার জন্যে রিজার্ভ বাসটিতে উঠে পড়ে। ফেরার সময়টা ছিলো আরও রোমাঞ্চকর, নাচ, গান, কবিতায় বিমোহিত ছিলো সকলে। ভ্রমণে উপস্থিত রাজনীতিবিদ আকবর হোসেন মনির, অ্যাডঃ মাহবুব আলম সকলে প্রবীণ মোস্তফা কামাল মুকুলের গান, কবিতায় সকলে খোলস ছেড়ে মেতে ওঠে উল্লাসে। সাংবাদিক ইকবাল এবং শিমুল হাসানও এদিন নিজেদের প্রথাগত খোলস থেকে বেরিয়ে এসে ভ্রমণকে স্মৃতি বিজড়িত করে তোলে।
ভ্রমণে ঢাকা থেকে অংশগ্রহণ করেন ফরিদগঞ্জ বার্তার সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ বিল্লাল হোসেন সাগর, সংগঠনের সিনিয়র সদস্য সাংবাদিক ফরিদ আহমেদ মুন্না ও নবিন সদস্য তানজিল হৃদয়। প্রায় ৫০ জনের বিশাল বহর নিয়ে এটাই সংগঠনের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এবং বড় ভ্রমণ। সকলের সুশৃঙ্খল সহযোগিতার জন্য ভ্রমণ কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্য সচিব সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সময় তারা বলেন, এভাবে যদি ভবিষ্যতেও সবাই সহযোগিতা করে তবে ইনশাআল্লাহ আগামীতে ২/৩ দিনের জন্য ট্যুর দেয়া সম্ভব হবে।
ভ্রমণকে আরো উপভোগ্য করার জন্যে আয়োজন করা হয় সোনারগাঁওয়ের জাদুঘর এবং পানাম নগর নিয়ে উপস্থিত জবাবের ভিত্তিতে কুইজের আয়োজন করা হয়। কুইজ প্রতিযোগিতার ছয়জন বিজয়ীর হাতে পুরস্কার তুলে দেন ভ্রমণ কমিটির নেতৃবৃন্দ। ভ্রমণকে আকর্ষণীয় করতে র‌্যাফেল ড্রয়ের আয়োজন করা হয়। লেখক ফোরাম প্রতিষ্ঠাতা নূরুল ইসলাম ফরহাদের একমাত্র কন্যা মেহরিমা ফরহাদ মালিহা লটারীর প্রথম পুরস্কারের একমাত্র টিকেট তোলার সুযোগ পেয়ে বাবার টিকেটই তোলে উৎসবে বাড়তি মাত্র যোগ করে। ঘটনাটি সবাইকে বিস্মিত করে! মেয়ে তুলেছে বাবার ভাগ্য সকলে এটা বলে বিস্ময়কর হাসিতে লটারির সমাপ্তি ঘটায়।
আনন্দ উল্লাসের মধ্য দিয়ে কখন যে সময় পুরিয়ে গেলো টেরই পেলো না কেউ। রাত দশটায় বাড়ি ফেরা। সুন্দর দিনের স্মৃতি নিয়ে শান্তির রাত সকলের। লেখক ফোরামের ভ্রমণ মানেই ভিন্ন রকম কিছু এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। সাহিত্য-সংস্কৃতির বৈতরণী বেয়ে লেখক ফোরাম পুরো সামাজিক দর্পণ।