• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০
  • ||
  • আর্কাইভ

হাজীগঞ্জে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে নির্মাণ কাজের অভিযোগ

প্রকাশ:  ১৫ মার্চ ২০২৩, ১৩:৩৩
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

হাজীগঞ্জে আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে বসতঘর নির্মাণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ১৪ মার্চ মঙ্গলবার পৌরসভাধীন ৪নং ওয়ার্ড মকিমাবাদ গ্রামের দুধ মিয়া জমিদার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।  খবর পেয়ে হাজীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক প্রভাকর বড়ুয়াসহ সঙ্গীয় ফোর্স ওই বাড়িতে উপস্থিত হয়ে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেন।
ভুক্তভোগী আকবর হোসেন জানান, পৌরসভাধীন ৮৩নং মকিমাবাদ ২১১৮নং খতিয়ানে হাল ৩৪৮ দাগে ১০ ফুট প্রস্থ এবং ৭৫ ফুট লম্বা ওই বাড়ির চলাচলের রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি এবং জনসাধারণের চলাচলের পথে বাধা দেয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষ মিনুয়ারা বেগমের কাছ থেকে প্রতিকার এবং ওইপথে সব ধরনের নির্মাণ কাজে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, চাঁদপুরে একটি আবেদন করেন তিনি।
ওই আবেদনের (নং-১৩২৮/২০২২) বিষয়টি বিজ্ঞ আদালত আমলে নিয়ে নালিশি ভূমিতে স্থিতাবস্থা জারি করেন। আদালত ফৌজাদারী কার্যবিধি আইনের ১৪৫ ধারার বিধান মোতাবেক নালিশি ভূমিতে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জকে (ওসি) স্থিতাবস্থা জারি এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে মতামতসহ তদন্ত প্রতিবেদন ও প্রতিপক্ষকে (মিনুয়ারা বেগম) কারণ দর্শানোর নির্দেশনা প্রদান করেন।
আকবর হোসেন আরো বলেন, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ১৪ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সকালে ২০-২৫ জন শ্রমিক নিয়ে আদালত কর্তৃক নিষেধাজ্ঞাকৃত (স্থিতাবস্থা) ভূমিতে মিনুয়ারা বেগম বসতঘরের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। বিষয়টি আমরা দেখতে পেয়ে তাদেরকে বাধা দেই এবং আদালতের নিষেধাজ্ঞা মেনে চলার অনুরোধ জানাই। কিন্তু মিনুয়ারাসহ তার পরিবারের লোকজন মারমুখী হয়ে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের দিকে তেড়ে আসে।
এ সময় আমরা নির্মাণ কাজের সংশ্লিষ্ট শ্রমিকদের কাজ না করার অনুরোধ জানাই। কিন্তু মিনুয়ারা বেগম জোরপূর্বক বসতঘরের কাজ শুরু করেন। এরপর আমরা নিরুপায় হয়ে জরুরি নম্বর ৯৯৯, হাজীগঞ্জ থানা পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের বিষয়টি জানাই। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কাজ বন্ধ করে দেন এবং তারাসহ আমাদের সবাইকে আদালতের নির্দেশনা মেনে চলার নির্দেশ প্রদান করেন।
এ বিষয়ে মিনুয়ারা বেগম জানান, তার বসতঘরের উপর আদালতের কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই। তাই, তিনি কাজ করাচ্ছেন। উল্টো তারা সবাই (আকবর হোসেন) এক হয়ে তার বসতঘরের চালের টিন লাগাতে বাধা দিচ্ছে এবং এই বাধার কারণে তিনি ঘরের কাজ শেষ করতে পারছেন না। এতে তিনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
হাজীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) প্রভাকর বড়ুয়া জানান, শান্তি-শৃঙ্খলার স্বার্থে উভয় পক্ষকে নালিশি ভূমিতে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, যেহেতু আদালতের স্থিতাবস্থা রয়েছে তাই উভয় পক্ষকে আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছি এবং আগামি দিনগুলোতে আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করার অনুরোধ জানিয়েছি।

 

সর্বাধিক পঠিত