• পরীক্ষামূলক সম্প্রচার
  • শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১
  • ||
  • আর্কাইভ

ফরিদগঞ্জের হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশ:  ২০ জুন ২০২৩, ১০:৪৯
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিন্ট

গোপনে বিয়ে করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফরিদগঞ্জ উপজেলার বালিথুবা গ্রামে আমিনুল ইসলাম আরিফ (২৩) নামে যুবককে হত্যায় দায়ের করা মামলায় অভিযুক্ত ৪ আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, প্রত্যেকের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা এবং অনাদায়ে আরো ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। সোমবার (১৯ জুন) দুপুরে চাঁদপুরের জ্যেষ্ঠ জেলা ও দায়রা জজ মোঃ মহসিনুল হক এই রায় দেন।
কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন : চাঁদপুর সদর উপজেলার বিষ্ণুপুর গ্রামের মোঃ ইউনুছের স্ত্রী সাহিদা বেগম (৪০), ফরিদগঞ্জ বালিথুবা গ্রামের হাজী আবদুল ওয়াদুদের ছেলে ওমর শরীফ (২০), একই উপজেলার সন্তোষপুর গ্রামের গাজী বাড়ির ইমান হকের ছেলে কামরুল ইসলাম (২৫) ও মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার হাসাইল এলাকার মোঃ হাফিজ উদ্দিন শেখের ছেলে সাইফুল ইসলাম (২০)।
হত্যার শিকার আমিনুল ইসলাম আরিফ লক্ষ্মীপুর জেলা সদরের মহাদেবপুর গ্রামের সামছুল ইসলামের ছেলে। তিনি রাজধানীর খিলগাঁও থানার উত্তর গোরান সিপাহীবাগ ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে একই এলাকার বাসিন্দা জনৈক ইউনুছের মেয়ে পিংকিকে গোপনে আদালতে নিয়ে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এই ঘটনা উভয় পরিবারে জানাজানি হলে পিংকির মা সাহিদা বেগম আরিফকে তুলে নিয়ে স্থানীয় ভাড়া করা লোকজন দিয়ে গোপন আস্তানায় রাখেন। আরিফ এই সংবাদ তার আপন খালা নিলা বেগমকে জানান। নিলা বেগম ঘটনাস্থলে গিয়ে সাহিদা বেগমকে পান। সাহিদা বেগমকে বুঝিয়ে সেখান থেকে আরিফকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। এরপর থেকে উভয় পরিবারে শত্রুতা চলতে থাকে।
এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পিংকির পরিবার অর্থাৎ সাহিদা বেগম, নাছিমা বেগম ও নাছির পরামর্শ করে পরিকল্পিতভাবে ২০০৮ সালের ৪মে রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামীদের মধ্যে ওমর শরীফ, কামরুল ও সাইফুল আরিফদের বাসায় গিয়ে তাকে চট্টগ্রাম নিয়ে যাবে বলে বাসা থেকে তুলে নিয়ে যায়। কিন্তু চট্টগ্রাম না নিয়ে তারা ফরিদগঞ্জের বালিথুবা গ্রামে ওমর শরীফের বাড়িতে এনে আরিফের গলায়, বুকে, তলপেটসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে উপর্যপুরি আঘাত করে হত্যা করেন এবং বাড়ির পুকুরে ফেলে দিয়ে মরদেহ গুম করেন।
আরিফকে পরিকল্পিত হত্যার পরের দিন ৫ মে ভোর আনুমানিক সকাল ৭টার দিকে আসামী ওমর শরীফ আরিফের মা মনোয়ারা বেগমকে জানান, আরিফ মারা গেছে। এই ঘটনার সত্যতা জানতে আরিফের মা ওমর শরীফের গোরানস্থ বাসায় গিয়ে তার পিতার মোবাইল দিয়ে শরীফকে ফোন দেন। শরীফ জানান, সে ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আছে। বিষয়টি জানতে পেরে আরিফের আপন চাচা মোঃ তাজুল ইসলাম পাটওয়ারী আত্মীয়-স্বজন নিয়ে ফরিদগঞ্জ হাসপাতালে আসেন এবং তার ভাতিজার মরদেহ দেখতে পান। এই ঘটনায় ওইদিনই তাজুল ইসলাম পাটওয়ারী বাদী হয়ে পিংকির মা সাহিদা বেগম, ওমর শরীফ, কামরুল হাসান, সাইফুল ইসলাম, নাছিমা বেগম ও নাছিরকে আসামী করে ফরিদগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় ফরিদগঞ্জ থানার তৎকালীন সময়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোহাম্মদ হোসেন সরকারকে। তিনি মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১২ সালের ২৬ ডিসেম্বর আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।
মামলায় সরকার পক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) রনজিত রায় চৌধুরী জানান, মামলাটি দীর্ঘ প্রায় ১৬ বছর চলাকালীন আদালতে ৯ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়। সাক্ষ্য গ্রহণ ও মামলার নথিপত্র পর্যালোচনা এবং আসামীদের অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় এই রায় দেন বিচারক। রায়ের সময় আসামী ওমর শরীফ পলাতক ছিলেন। বাকি ৩ আসামীর উপস্থিতিতে রায় দেন। আসামী পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া।

সর্বাধিক পঠিত